• Connect Us

  • Share Us

 | 

Education

অশিক্ষিতের ভগবান

যে সব ভক্তেরা অশিক্ষা আর দারিদ্রতার ভার বয়ে নিয়ে বেড়াচ্ছে  আর তাদের প্রতি ই আবার হিন্দু দেব দেবী গুলো ভর করে থাকে। দ্বিগুন ভার বহন করে চলছে এসব  ভক্তেরা। এটা নিশ্চই  সেই দেব দেবীর অপার করুণা তাই এই দ্বিগুন ভার বইতে সক্ষম ! যদি আশীর্বাদ ই করতে পারতো  তবে ভক্তের ,ক্ষুধা ,দারিদ্রতা ,অশিক্ষার ভার গুলো দেব দেবী রা নিয়ে তারপর না হয় দেব দেবী তাদের মাথায় বা ঘাড়ে ভর করতো। কিন্তু তা হয়না কারণ তারা অশিক্ষার    ভারবাহী দুর্বল বলেই তো  দেব দেবী গণ এই সুযোগে দুর্বলের কাঁধে চেপে গেলো ,যদি সত্যি দেবদেবীর হৃদয়ে  দয়া-মায়া বা প্রেম থাকতো তবে তারা  কি পারতো ভারবাহী দুর্বলের কাছে আবার  নিজেদের কে চাপাতে ? নিজেদের খাবার সেই দুর্বল ভক্তদের থেকে চেয়ে নিতে ? অশিক্ষিতের দেবতা-ভগবান ও কি তাহলে সুযোগ সন্ধানী নাকি সেও অশিক্ষিত কিংবা ক্ষুধার্ত, তাই হয়তো ভক্তদের  শিক্ষা কিংবা খাদ্য  দিতে নিজেই অপারগ।তাহলে সত্য টা কি ? সত্য  হলো ওগুলো মোটেই দেব দেবী ই নয় , ভর তো নয়ই তবে দিব্য অনুভূতি কখনো কখনো অতি সাধারণ  মানুষ বা সাধারণ ভক্তের ও হতে পারে কিন্তু  সেটা ক্ষনিকের জন্য ,বিজলি চমকের মতো কারণ  সাধারণ মানুষ এই শক্তি কে বেশি মুহূর্ত  ধরে রাখতে বা নিয়ন্ত্রণ করতে পারেন না  কিন্তু এই বিজলি চমক কে তাঁরাই সত্যি বা দীর্ঘ্য সময় দেদীপ্যমান রাখতে পারেন যাঁরা উচ্চ স্তরের সাধক, আধ্যাত্মিক ভাষায় এটাকে সমাধি বলে ,অর্থাৎ পার্থিব শরীর কে ভুলে নিজের মন বা আত্না কে দিব্য ভাবের সাথে কিছু সময় মিলিত রাখা বা সাযুজ্য করা , কিন্তু এই প্রক্রিয়া ভাবের অধীন নির্দিষ্ট শিডিউলে পূজা সময়ে হবে সেটা নিশ্চিত নয় এমন কি পার্থিব জিজ্ঞাসা ,পার্থিব সমাধান দিতে পারবেন না  এই সমাধি তে মগ্ন সাধক কারণ তিনি সেই মুহূর্তে পার্থিব  সত্তা বা শরীর কে বিস্মৃত হয়ে যান ,আপনার সোনা কে চুরি করে নিয়ে গেলো তার সমাধান এই সমাধি বা ভর থেকে পাবার কথা নয়। কিশোরে কুমার এর মতো কণ্ঠ অনেকের আছে তারা হয়তো  কিশোরের কুমারের গান  গেয়ে জীবিকা নির্বাহ করতে পারে কিন্তু সে আসলে তো কিশোর কুমার নন, এমন কি কিশোর  কুমারের মতো কণ্ঠ  পুরোপুরি হবে ও না ,কারণ এটা একটা অনুকরণ মাত্র। তেমনি মহা সাধকের সমাধি কে অনুকরণ করে সেটা কে এক শ্রেণীর নিচু ভক্ত রা সেটা কে দেব -দেবীর ভর বলছে , দেব দেবী মানুষের ওপর ভর কেন করবে ? মানুষ ই তো  দেব দেবীর ওপর ভর করে থাকে ,আর যদিও দেব দেবী ভর করে তবে সেটা এতো সহজে কি করে হয় ? কত জন্ম লেগে যায় ব্রাহ্ম পদ লাভ করতে আর সেই মহা শক্তি এতো সহজে ভর করলে তো  আর কোনো অবতার কে পৃথিবীতে অবতীর্ণ হতে হতো না।  তারপর ও যদি মহা সাধকের সমাধি কে অনুকরণ করতে চান তাতেও শিক্ষার দরকার আছে ,ন্যূনতম শিক্ষা টুকু গ্রহণ করুন  তাহলে সমাধির অনুকরণ করা টা তে অন্তত ভুল হবে  না ,সর্বোপরি ভ্রান্ত অনুকরণ ছাড়ুন ,লোকাচার এ জীর্ণ করবেন না সনাতন অধ্যাত্ম কে , আর আরো ভালো অনুকরণ বা  অভিনয় করতে চাইলে সিনেমা সিরিয়ালে যান , আর যদি মানসিক রোগ থাকে তাহলে  ডাক্তার এর কাছে যান ,দেব দেবী ভরের নাম করে আর  লোক হাসাবেন না। 

leave a reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Your Name (required)

Email (required)

This email is not valid

Mobile No (required)

Thanks for commentining us.

Some issue during.......