• Connect Us

  • Share Us

 | 

Health

শিলালিপির ধারায় প্রেসক্রিপশন

সারা পৃথিবীতে প্রফেশন এর মধ্যে ডাক্তার ,শিক্ষক ,বিচারক এর সম্মান বেশি ,তবে বিচারক কে হুজুর বা ধর্মাবতার বললেও তাকে কেউ ভগবান বলে না কিন্তু ডাক্তার কে ভগবান বলে, এর থেকে আর সম্মান কি হতে পারে । আর ডাক্তার গণ  আন্তরিক ভাবে এই  দৈবিক কাজ গুলো করেন বলে তাকে ভগবান বলে ,সাধারণ মানুষের মতো কাজ করলে তো আর তাকে ভগবান বলে সম্মান করবার  দরকার হতো না।ডাক্তার  যখন ভগবান সম্বোধন পেয়ে যাচ্ছেন তাই দায়িত্ববোধ ও বেশি থাকার আছে।  
 তবে অনেক জায়গায় আজকাল দেখা গেছে ডাক্তার অসম্মান করা থেকে আঘাত করা পর্যন্ত হয়েছে , এটা অত্যন্ত ঘৃণিত ও অনৈতিক। কিন্তু   অর্থনৈতিক ও সামাজিক অবস্থার প্রেক্ষাপটে বলা যায়  রোগীরা যতখানি অবহেলিত , অসহায় বা অসম্মানিত ততটা কিন্তু ডাক্তার গণ নয় । ডাক্তার গণ আমাদের জীবন দায়ী ,কিন্তু তাঁরা যেভাবে ভাবে আদি যুগের শিলালিপির ধারায় প্রেসক্রিপশন লিখে যাচ্ছেন সেটা আধুনিক যুগে মেনে নেওয়া যায়না।  এটা একরকম  ইমোশনাল ব্ল্যাকমেল। কোনো কোনো প্রেসক্রিপশন তো ফার্মেসি থেকে ও উদ্ধার করা যায়না আবার তখন ডাক্তার কে এমার্জেন্সি ফোন করেও পাওয়া যায়না, হয়তো  প্রেসক্রিপশন উদ্ধার করতে ফরেনসিক ল্যাবে যাবার সুযোগ করে দিচ্ছেন ওনারা। জীবনদায়ী ডাক্তারের  সময়ের দাম টা মানে  ফিস টা গরিব থেকে ধনী ব্যক্তির থেকে একই রকম পান  ,তবে প্রেসক্রিপশন এর লেখা টা বুঝতে গেলে ,আর তাই নিয়ে দু  বার মোবাইল কল করলে তো সিংহ খরগোশের মতো অবস্থা !  মেডিকেল কমিউনিটি আর মেডিকেল সাইন্স এর অনেক উন্নতি হলেও মেডিকেল প্রেসক্রিপশন রাইটিং এর কোনো উন্নতি হয়নি  ,আজকাল ডিজিটালাইজেশন এর যুগে প্রেসক্রিপশন এর লেখা উদ্ধার করতে এখনো এক্সপার্ট দরকার হয় , সাধারণ রোগী গণ তাদের প্রেস্ক্রাইবড মেডিসিন বা মেডিসিন টেকিং ডাইরেকশন বোঝার জন্য ড্রাগিষ্ট বা ফার্মাসিস্ট এর সান্নিধ্য যেতে বাধ্য হন , মেডিকেল কমিউনিটি এর কাছে রোগীকে সর্বৈব অধীনস্ত ও হয়রানি করবার জন্য এটা হলো একটা বিশেষ ধারা, পক্ষান্তরে এতে চিকিৎসা  বাণিজ্যিক মজবুত হয়। কারণ রোগীকে তার পয়সা দিয়ে কেনা প্রেসক্রিপশন এর শব্দ বুঝতে গেলেও ওষুধের দোকানে একবার পায়েরধুলি দিতে ই হচ্ছে । প্রাঞ্জল ভাষায় বা ফর্মাল ল্যাঙ্গুয়েজে মেডিসিনের ডাইরেকশন থাকে না । এতো যত্ন সহকারে কনসাল্টিং ফিস টার  এগেইনস্ট এ প্রিন্টেড বা ডিজিটালাইজড বিল দেওয়া হয় কিন্তু এই ভাবে প্রেসক্রিপশন লেখাটার ঐতিহ্য বন্ধ হলোনা।কিন্তু একটু বিবেচনা করুন যে অসহায় গ্রস্থ রোগী এই শিলালিপি প্রেসক্রিপশন নিয়ে আরও বিপাকে পরে যায় তাই প্রেসক্রিপশন প্রিন্টেড করার ব্যবস্থা করা একান্ত দরকার।প্রেসক্রিপশন প্রিন্টেড হলে ডাক্তার এর সময় কম লাগবে ,অনেক কমন এডভাইস ,ইনফরমেশন অটো টেক্সটেড থাকতে পারবে  , নেক্সট ভিসিট এর জন্য স্পেচ তো থাকবেই । হ্যান্ড প্রিন্টেড ডিভাইস থাকা প্রয়োজন যেমন ডাক্তারের কাছে কিছু মেডিকেল ডিভাইস থাকে। 

leave a reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Your Name (required)

Email (required)

This email is not valid

Mobile No (required)

Thanks for commentining us.

Some issue during.......